ইতিহাসের সর্বোচ্চ রপ্তানি...

ইতিহাসের সর্বোচ্চ রপ্তানি...

করোনার মধ্যেই গত ডিসেম্বরে রেকর্ড ৪৯১ কোটি ডলারের পণ্য রপ্তানি হয়েছে। একক মাসের হিসাবে দেশের ইতিহাসে এটাই সর্বোচ্চ রপ্তানি। ২০২০ সালের ডিসেম্বরের তুলনায় এই আয় ৪৮ শতাংশ বেশি।

রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর হালনাগাদ তথ্যে জানানো হয়, ডিসেম্বরে রেকর্ড রপ্তানির কারণে চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম ৬ মাসে ২ হাজার ৪৭০ কোটি ডলারের পণ্য রপ্তানি করা হয়েছে। এ আয় গত অর্থবছরের একই সময়ের ২৮ শতাংশ বেশি।

অতীতে এক পঞ্জিকা বছরের হিসাবে এত পণ্য কখনও রপ্তানি হয়নি বলে জানাচ্ছেন রপ্তানিকারকরা। রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) তথ্যও বলছে তা।

রপ্তানির এ রেকর্ডের পেছনে বড় ভূমিকা রেখেছে তৈরি পোশাক খাত। গত মাসে ৪০৪ কোটি ডলারের তৈরি পোশাক রপ্তানি করা হয়েছে, যা আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে সাড়ে ৫২ শতাংশ বেশি।

আর অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে ১ হাজার ৯৯০ কোটি ডলারের পোশাক রপ্তানি হয়। প্রবৃদ্ধি হয়েছে ২৮ শতাংশ। অর্থবছরের প্রথম ৬ মাসে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে রপ্তানি আয় বেশি ১৫ শতাংশ।

এছাড়া হিমায়িত খাবার, কৃষি, প্লাস্টিক পণ্য, চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য, পাট ও পাটজাত পণ্যও রপ্তানির এ প্রবৃদ্ধিতে ভালো অবদান রেখেছে। তবে ডিসেম্বরে ওষুধ শিল্পের রপ্তানি প্রবৃদ্ধি ৯.৮ শতাংশ কমেছে।

অপরদিকে ঠিক এক বছর আগের ডিসেম্বরে রপ্তানি হয়েছিল ৩৩০ কোটি ৯৮ লাখ ডলারের পণ্য। আগের বছরের একই মাসের তুলনায় বেড়েছে ৪৮ দশমিক ২৭ শতাংশ।

ইপিবির তথ্যে দেখা যায়, চলতি অর্থবছরের প্রথম ছয় মাস শেষে সামগ্রিক রপ্তানিতে ২৮ দশমিক ৪১ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছে, যা অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে বেশি।

এ সময়ে ২ হাজার ৪৬৯ কোটি ৮৫ লাখ ডলারের পণ্য রপ্তানি হয়েছে। গত অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে যা ছিল এক হাজার ৯২৩ কোটি ৩৪ লাখ ডলার।

অথচ চলতি অর্থবছরের শুরুটা হয়েছিল হতাশার মধ্য দিয়ে। প্রথম মাস জুলাই শেষে রপ্তানি ১১ দশমিক ১৯ শতাংশ নেতিবাচক প্রবৃদ্ধিতে ছিল। পরের মাসেই অবশ্য ঘুরে দাঁড়ানোর ইঙ্গিত মেলে। অগাস্টে একক মাসে ১৪ দশমিক ০২ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছিল।

#তমহ/বিবি/০৩-০১-২০২২

ক্যাটেগরী: অর্থনীতি

ট্যাগ: অর্থনীতি

অর্থনীতি ডেস্ক, বিবি সোম, জানুয়ারী ৩, ২০২২ ১২:৩৩ অপরাহ্ন

Comments (Total 0)